সারা বাংলা

জাবির ফজিলাতুন্নেছা হলে ‘চোর’ আতঙ্ক!

মো. শরীফুল ইসলাম নকিব
জাবি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ফজিলাতুন্নেছা হলে ‘বহিরাগত চোরের অনুপ্রবেশের’ আতঙ্কে ভূগছেন আবাসিক ছাত্রীরা। ছাত্রী হলে পুরুষ চোর ঢোকায় হলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী ছাত্রীরা জানান, গত ১৩ অক্টোবর দিবাগত রাতে হলের গণরুমে ৪৭ তম ব্যাচের ৬ জন ছাত্রী অবস্থান করছিলেন। এদের মধ্যে দুই জন ছাত্রী জানালার পাশে ঘুমাচ্ছিলেন। এক পর্যায়ে রাত সাড়ে তিনটার দিকে মোবাইলের টর্চের আলোয় এক ছাত্রী জেগে যান। এ সময় তিনি জানালার পাশে অজ্ঞাত এক ব্যক্তিকে দেখেন। তৎক্ষণাৎ সেই ছাত্রী পাশে অবস্থানকারী ছাত্রীকে ডেকে তোলেন। তখন অজ্ঞাত ব্যক্তিটি ওই ছাত্রীকে ‘চুপ’ থাকতে বলেন। এই কথা রুমের অন্যান্য ছাত্রীরা শুনতে পেয়ে ভয়ে চিৎকার শুরু করেন। চিৎকার শুনে বেশ কিছুক্ষণ পরে ওই ব্যক্তি পালিয়ে যান। এর আগে সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহে হলটিতে চুরির ঘটনা ঘটে। ওইদিন রাতে এক ছাত্রী অজ্ঞাত কাউকে হলের করিডোরে দেখেন। তবে বিষয়টি তখন তিনি মতিভ্রম ভেবে উড়িয়ে দেন। পরে সেই দিন ভোরে আরেক ছাত্রী সেই ব্যক্তিকে দেখে চিৎকার শুরু করেন। তবে দুই ঘটনায় কাউকেই আটক করা সম্ভব হয়নি।

নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের ৪৭ ব্যাচের এক ছাত্রী অভিযোগ করে বলেন, ভর্তি পরীক্ষা শেষে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকায় হল অনেকটাই ফাঁকা ছিল। ১৩ তারিখ দিবাগত রাতে এক লোকের কথা শুনে ঘুম থেকে জেগে গিয়ে সবাই চিৎকার শুরু করে। তাৎক্ষনিকভাবে বিষয়টি হলের গার্ডদের জানানো হয়। তবে তারা নানাভাবে সময়ক্ষেপন করেছেন। তারা প্রথমে হলের ভেতরে না খুঁজে বাইরে দেখতে গেছেন। পরে ভেতরে এসে খুঁজেছেন। ঘটনার পর হলে বৈদ্যুতিক বাতি বাড়ানো হয়েছে। তবে এমন জায়গায় সেগুলো দেয়া হয়েছে যে, তা কোন কাজে আসবে না।

অচিরেই ঘটনার তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা না নিয়ে ভবিষ্যতে বড় ধরণের দুর্ঘটনার আংশকা ছাত্রীদের। নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের ৪৭ ব্যাচের ওই ছাত্রী আরো বলেন, ঘটনার পর স্বাভাবিকভাবেই হলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। তাছাড়া পরপর দুইবার এমন ঘটনা ঘটায় সবার মাঝে আতঙ্ক কাজ করছে। হলের দায়িত্বরত এক গার্ড বলেন, আমি চুরির ঘটনা ছাত্রীদের কাছ থেকে শুনেছি। তবে হলের চারপাশে দেয়ালের উপর কাঁটাতারের বেড়া দেয়া। মই দিয়ে যে ভেতরে ঢুকতে পারবে এমন সুযোগও নেই। এ বিষয়ে হলটির প্রভোস্ট অধ্যাপক এ টি এম আতিকুর রহমান বলেন, আমি এ বিষয়ে অবগত আছি। জরুরি ভিত্তিতে হলে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করাসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে যাতে এই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয়।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *