অর্থনীতি লিড নিউজ

বিমানের বন্ধ রুটের পাশাপাশি নতুন রুট চালুর উদ্যোগ

বিএনএন ৭১ ডটকম
ঢাকা: সরকার ভর্তুকি দিয়ে চালানো রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসকে লাভজনক করার পাশাপাশি যাত্রীসেবা নিশ্চিত করার উদ্যোগ নিয়েছে। ওই লক্ষ্যে মহাপরিকল্পনা করা হয়েছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী বিমানের আমূল সংস্কারের পাশাপাশি বন্ধ হয়ে যাওয়া রুটগুলো চালু করা হবে। তৈরি করা হবে নতুন রুটও। তবে রুট চালুর ক্ষেত্রে প্রবাসী বাঙালি অধ্যুষিত দেশ ও শহরগুলোকে প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে। একই সাথে বিমানবহরে নতুন উড়োজাহাজ যুক্ত করার প্রওি গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, নতুন পরিকল্পনায় বিমানের অভ্যন্তরীণ রুটে কোনো পরিবর্তন আনা হচ্ছে না। তবে আন্তর্জাতিক রুটে ব্যাপক পরিবর্তন করা হবে। লোকসান ও যাত্রী সংকটের কারণে স্থগিত থাকা রুটগুলো নতুন করে চালু হবে। পুরনো কিছু রুট নতুন করে সাজানো হবে। তার মধ্যে রয়েছে ভারতের দিল্লি, হংকং, ইতালির রোম, জাপানের টোকিও ও যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহর। তাছাড়া লাভজনক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এমন কয়েকটি রুটে বিমান চালুর প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রস্তাবিত রুটগুলোর মধ্যে রয়েছে চীনের গোয়াংজু, শ্রীলঙ্কার কলম্বো, মালদ্বীপের মালে ও সৌদি আরবের মদিনা শহর। তাছাড়া সম্ভাবনাময় নতুন রুট খোঁজার কাজও চালানো হবে। বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়ার সিডনি, কানাডার টরন্টো, ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তা ও ভারতের বাণিজ্যিক শহর মুম্বাইয়ে বিমান চলাচলে কতটা লাভজনক হবে তা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য বলা হয়েছে।

সূত্র জানায়, বিমানের নতুন রুট হিসেবে চীনের গোয়াংজু শহরে বিমান চলাচলে চীনের কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষের অনুমোদন, জিএসএ নিয়োগ এবং স্লট পেয়েছে সরকার। কিন্তু উড়োজাহাজ স্বল্পতার কারণে এতোদিন বিমান উড়তে পারেনি। সেটি চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরেই চালু হতে পারে। সেটি চালু হলে সপ্তাহে তিনটি ফ্লাইট পরিচালিত হবে। একইভাবে কলম্বো ও মালে রুটেও একই সময়ে ফ্লাইট পরিচালনার টার্গেট নির্ধারণ রয়েছে। সেটা চালু হলে সপ্তাহে দুটি ফ্লাইট ঢাকা-কলম্বো-মালে-ঢাকা রুটে এবং অপর ফ্লাইটটি ঢাকা-কলম্বো-ঢাকা রুটে পরিচালিত হবে। আর সুপরিসর উড়োজাহাজ দিয়ে সৌদি আরবের মদিনা শহরে সপ্তাহে তিনটি ফ্লাইট পরিচালনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তাছাড়া মহাপরিকল্পনা অনুযায়ী বিমানের রুট পরিচালনার জন্য নতুন উড়োজাহাজ কেনার পরিকল্পনাও নেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে অতীতের অভিজ্ঞতার আলোকে কোনো রুট যাতে লোকসানে না পড়ে সেজন্য প্রয়োজনীয় সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। আর আগামীতে যাতে বিমানের যাত্রীসেবা নিয়ে প্রশ্ন না ওঠে সে বিষয়ে করণীয় নির্ধারণ করা হয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, বর্তমানে বিমান ৭টি অভ্যন্তরীণ ও ১৫টি আন্তর্জাতিক রুটে যাতায়াত করছে। অভ্যন্তরীণ রুটগুলো হচ্ছে-চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, যশোর, রাজশাহী, সৈয়দপুর ও বরিশাল। আর আন্তর্জাতিক রুটগুলো হচ্ছে- আবুধাবি, দুবাই, জেদ্দা, রিয়াদ, দাম্মাম, কুয়েত, দোহা, মাস্কাট, লন্ডন, সিঙ্গাপুর, কুয়ালালামপুর, ব্যাংকক, ইয়াংগুন, কাঠমান্ডু ও কলকাতা। আর লোকসানের কারণে দিল্লি, হংকং, রোম, টোকিও ও নিউইয়র্ক রুটে বিমান পরিচালনা স্থগিত করা হয়। তার মধ্যে নিউইয়র্ক রুটটি আগেই চালুর জন্য একাধিকবার উদ্যোগ নেয়া হলেও তা আলোর মুখ দেখেনি।

এ প্রসঙ্গে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি কর্নেল (অব.) ফারুক খান জানান, বিমানকে কিভাবে লাভজনক করা যায়, তা নিয়ে পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়েছে। ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ হলে বিমানকে একটা সম্মানজনক অবস্থানে নিয়ে যাওয়া যাবে। কমিটির পক্ষ থেকে বিমানকে স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পরিচালনা করতে বলা হয়েছে, যাতে যাত্রীদের হয়রানি ও ভোগান্তি কমে আসে। সংসদীয় কমিটি পরিকল্পনাগুলো সুচারুভাবে প্রতিপালন করা হচ্ছে কি না তা তদারকি করবে। তবে পরিকল্পনা বাস্তবায়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ও মন্ত্রণালয়।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *