আন্তর্জাতিক

টাইম ম্যাগাজিনে বিশ্বের ১০০ প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের তালিকায় শেখ হাসিনা

বিএনএন ৭১ ডটকম
আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক টাইম ম্যাগাজিনে ২০১৮ সালে বিশ্বের ১০০ প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের তালিকায় নির্বাচিত হয়েছেন। আন্তর্জাতিক ম্যাগাজিনটি মিয়ানমারে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়ে পালিয়ে আসা ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে কঠিন পরিস্থতিতে আশ্রয় দেয়ার মানবিক ভূমিকার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য শেখ হাসিনাকে বিশ্বের সর্বোচ্চ মর্যাদার সবচেয়ে ক্ষমতাধর ১০০ জনের তালিকায় স্থান দেয়।

গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এই তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে রয়েছেন। টাইম ম্যাগাজিন শেখ হাসিনাকে নিয়ে একটি নিবন্ধও প্রকাশ করেছে। এতে নির্ভয়ে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার চ্যালেন্স গ্রহণে তাঁর অতুলনীয় মানবিক ভূমিকার প্রশংসা করা হয়েছে। এই নিবন্ধে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের দক্ষিণ এশিয়া পরিচালক মিনাক্ষী গাঙ্গুলি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী পিতার উত্তরাধিকারী হাসিনা কখনোই লড়াইয়ে ভয় পান না। গত আগস্টে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংসতায় রোহিঙ্গারা দেশ থেকে পালিয়ে স্রোতের মতো বাংলাদেশে ঢুকতে থাকে উল্লেখ করে গাঙ্গুলি বলেন, দরিদ্র দেশ হিসেবে এই বিপুল জন স্রোত বাংলাদেশে আশ্রয় দেয়া সম্ভব নয়, তা সত্ত্বেও শেখ হাসিনা এই মানবিক চ্যালেন্স গ্রহণ করেন এবং তাদের জাতিগত নিধনের শিকার হতে দেননি।

গাঙ্গুলি তার নিবন্ধে ১৯৯০ দশকে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনার কঠোর অবস্থান এবং ২০০৮ সালে বাংলাদেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার অবদান তুলে ধরেন। যা পরবর্তী সাধারণ নির্বাচনে তাঁর জন্য বিপুলভাবে বিজয় নিয়ে আসে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালনের জন্য গতবছর ব্রিটিশ মিডিয়া শেখ হাসিনাকে ‘মাদার অব হিউম্যানেটি’ হিসেবে ভূষিত করে এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের শীর্ষ সংবাদপত্র খালিজ টাইমস রোহিঙ্গা ইস্যুতে শেখ হাসিনার মানবিক ভূমিকা পালনের ভূয়সী প্রশংসা করে এবং তাকে ‘নিউ স্টার অব দ্য ইস্ট’ হিসেবে তুলে ধরে।

এর আগে ২০১৬ সালে বিজনেস ম্যাগাজিন ফরচুনের বিশ্বের প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের ৫০ জনের তালিকায় শেখ হাসিনা ১০ম স্থানে উঠে আসেন। ২০১৫ সালে বিজনেস ম্যাগাজিন ফোবস বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর ১০০ নারীর তালিকায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অন্তর্ভুক্ত করে।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *