সাক্ষাতকার

সঠিক পথে চলতে পারলে সাফল্য আসবেই: আহমদ নাবীল শরফুদ্দীন

বিএনএন ৭১ ডটকম

নিউজরুমে কাটিয়েছেন একে একে ২৪টি বসন্ত। এরমধ্যে কাজ করেছেন যুগান্তর, যায়যায়দিন, ভোরের কাগজ ও দৈনিক সংবাদে। বর্তমানে দৈনিক মানবকণ্ঠের শিফট ইনচার্জ তিনি। সদা হাস্যোজ্জল এই মানুষটির নাম আহমদ নাবীল শরফুদ্দীন। তিনি সাংবাদিকতার পাশাপাশি একজন লেখকও। নিয়মিত শিশুদের নিয়ে বই লিখতে ভালোবাসেন তিনি।

১৯৬৬ সালের ২ মার্চ ঢাকায় এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে তার জন্ম। তার বাবার নাম আবদুল্লাহ আল-মুতী। যিনি বিজ্ঞান লেখক হিসেবে দেশব্যাপী ব্যাপক জনপ্রিয়। এছাড়া তার বাবা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব ছিলেন। বাবার চাকরির সুবাদে আহমদ নাবীল শরফুদ্দীনের শৈশব কেটেছে ঢাকা ও মস্কোতে। তার প্রিয় ফুল বেলি ও প্রিয় ফল তরমুজ। অবসরে একমাত্র মেয়ে জারিনকে সময় দিতেই বেশি ভালোবাসেন তিনি। সম্প্রতি বিএনএন ৭১ ডটকমকে দেয়া তার সাক্ষাতকারের চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো-

প্রশ্ন: সাংবাদিকতা ও লেখালেখি সবকিছু মিলিয়ে কেমন আছেন?
নাবীল: আলহামদুলিল্লাহ। ভালো আছি।

প্রশ্ন: সাংবাদিকতার পাশাপাশি আপনি এখন পুরোদস্তুর লেখক। কোনটাতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন?
নাবীল: আসলে সাংবাদিকতা আর লেখালেখি দুটোই একই ধরণের আমার কাছে মনে হয়। তবে লেখালেখিটা আমি এনজয় করি। এর মাধ্যমে পাঠকের অনেক কাছে পৌঁছানো যায়।

প্রশ্ন: আপনার সর্বশেষ প্রকাশিত বই কোনটি? সেটি সম্পকে কিছু বলুন?
নাবীল: আমার সর্বশেষ প্রকাশিত বইয়ের নাম আব্বাকে মনে পড়ে। এটি মূলত আমার বাবাকে নিয়ে একটি স্মৃতিকথা মূলক বই।

প্রশ্ন: লেখা-লেখি নিয়ে আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কি?
নাবীল: আপাতত তেমন কিছু ভাবছি না। আসলে ভেবে চিন্তে লেখালেখিটা হয়না।

প্রশ্ন: এবার একটু অন্য প্রসঙ্গে আসি। আপনার কি কখনো মনে হয়েছে-ইশ যদি আমি সাংবাদিক না হয়ে অন্য কোন প্রোফেশনে থাকতাম?
নাবীল: মাঝে মাঝে মনে হয়। যদি আমি শিক্ষক হতে পারতাম। তাহলে দেশ ও জাতি গঠনে সরাসরি ভূমিকা রাখতে পারতাম।

প্রশ্ন: প্রথম যেদিন আপনার সম্পাদিত নিউজ পত্রিকায় ছাপা হলো সেদিনের অনুভুতি কেমন ছিল?
নাবীল: আসলে সেটি প্রায় দুই যুগ আগের কথা। তবে যতটুকু মনে পড়ে আমি অনেক খুশি হয়েছিলাম। মনে হচ্ছিল আমাকে দিয়েই হবে।

প্রশ্ন: সাংবাদিকতায় আসার পেছনে আপনার অনুপ্রেরণা কে?
নাবীল: আসলে লেখালেখিটা আমার রক্তে মিশে আছে। বাবা বিজ্ঞান লেখক ছিলেন, হয়তো তাই লেখালেখিটা আমাকেও টানতো। কিন্তু সাংবাদিকতায় হুট করে আসা।

প্রশ্ন: এবার ব্যক্তি নাবীল সম্পর্কে কিছু বলুন?
নাবীল: আমি একটি কথা খুব বিশ্বাস করি, সেটা হলো নিজে ভালো তো জগত ভালো।

প্রশ্ন: জীবনের সাফল্য বলতে যা বোঝেন?
নাবীল: আসলে মানুষের চাহিদার কোন শেষ নেই…জীবন চলছে চলুক। জীবনে সঠিক পথে চলতে পারলে সাফল্য প্রতিনিয়তই আসবে।

বিএনএন ৭১ ডটকম: আাপনাকে ধন্যবাদ।
নাবীল: আপনাকেও ধন্যবাদ।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *