অর্থনীতি লিড নিউজ

নিবন্ধন বিলম্বে হজ ব্যবস্থাপনায় নানা সঙ্কট সৃষ্টির আশঙ্কা বাড়ছে

বিএনএন ৭১ ডটকম
ঢাকা: হজযাত্রীদের নিবন্ধনের জন্য দু’দফা সময় বাড়িয়ে শেষ করা যায়নি। সেজন্য পহেলা এপ্রিল পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়েছে। আর ওই সময়ের মধ্যে হজযাত্রীরা নিবন্ধন না করলে নির্দিষ্ট সিরিয়ালের মধ্যে থাকার আর সুযোগ পাবেন না। পরবর্তী সিরিয়াল থেকে নিবন্ধনের সুযোগ দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ধর্ম মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টরা। সময় বাড়ানোর পরও নিবন্ধন বিলম্ব হওয়ার কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্টরা ভুয়া হজযাত্রীদের আইডি ব্যবহার করে প্রাক-নিবন্ধন করাকে দায়ী করেছেন। আর নিবন্ধনে দেরি হওয়ায় হজ ব্যবস্থাপনায় নানা সঙ্কট সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কাও বাড়ছে। ধর্ম মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের মূল নিবন্ধন বিগত ১ মার্চ থেকে শুরু হয়। আর ৬ মার্চ থেকে শুরু হয় বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় নিবন্ধন। ধর্ম মন্ত্রণালয় প্রথম দফা ১১ মার্চ পর্যন্ত নিবন্ধনের সময় দেয়। কিন্তু ওই সময়ে খুব অল্পসংখ্যক হজযাত্রী নিবন্ধন করেন। সেজন্য মন্ত্রণালয় ১৮ মার্চ পর্যন্ত সময় বাড়ায়। কিন্তু তাতেও নির্ধারিত কোটার হজযাত্রী নিবন্ধন সম্পন্ন হয়নি। ফলে নিবন্ধনের জন্য আরেক দফা সময় বাড়িয়ে ২২ মার্চ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়। এখন পর্যন্ত সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রায় ৬ হাজার এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রায় সাড়ে ৭৮ হাজার জন নিবন্ধন করেছেন।

সূত্র জানায়, এ বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭ হাজার ১৯৮ জন হজে যাবেন। তার মধ্যে হজগাইডসহ সরকারি বিভিন্ন টিমের সদস্য সরাসরি নিবন্ধন করবেন। ফলে সরকারি ব্যবস্থাপনায় আর নিবন্ধন করতে তেমন বেশি বাকি নেই। তবে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এ বছর মোট হজযাত্রী যাবেন এক লাখ ২০ হাজার। তার মধ্যে হজগাইড যাবেন ৩ হাজার ৪০০ জন। হজগাইডরা সরাসরি নিবন্ধন করবেন। ফলে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ১৬ হাজার ৬০০ জন পূরণ হতে এখনো ৩৮ হাজার ২৯৫ জন বাকি। সেজন্য আগামী ১ এপ্রিল পর্যন্ত আরো সময় বাড়িয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ১ এপ্রিলের পর নির্দিষ্ট ক্রমিকের মধ্যে থাকা হজযাত্রীরা নিবন্ধন না করলে তারা আর এ বছর হজে যাওয়ার সুযোগ পাবেন না। এ বছর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় নিবন্ধনের জন্য প্রাথমিকভাবে প্রাক-নিবন্ধনের ৩ লাখ ৫২ হাজার ২৯২ ক্রমিক পর্যন্ত নির্দিষ্ট করা হয়েছিল। ১ এপ্রিল পর্যন্ত কোটার সমান নিবন্ধন সম্পন্ন না হলে এর পরের ক্রমিক থেকে নিবন্ধন করা হবে। অভিযোগ রয়েছে, গুটিকতক বেসরকারি এজেন্সি মালিক বিগত বছরগুলোতে ভুয়া হজযাত্রীর নামে প্রাক-নিবন্ধন করে পরে রিপ্লেসমেন্টের সুযোগ নিয়ে বিপুল অঙ্কের টাকা আয় করার অপচেষ্টা করে। এবারো সে রকম অপচেষ্টা হচ্ছে বলে অনেকেরই আশঙ্কা।

সূত্র আরো জানায়, সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের ইতোমধ্যে সৌদি আরবে বাড়ি ভাড়া, মোয়াল্লেমের সাথে চুক্তিসহ বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এখনো নিবন্ধন সম্পন্ন না হওয়ায় বাড়ি ভাড়া, মোয়াল্লেমের সাথে চুক্তি করা হয়নি। নিবন্ধনে দেরি হলে বেসরকারি এজেন্সিগুলোর বাড়ি ভাড়া ও মোয়াল্লেম পেতে সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা থাকে।
এদিকে এ প্রসঙ্গে হজযাত্রী ও হাজী কল্যাণ পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট ড. আবদুল্লাহ আল নাসের জানান, এখন অন্য দেশের পক্ষ থেকে বাড়ি ভাড়া, মোয়াল্লেমের সাথে চুক্তি হয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ থেকে দেরিতে নিবন্ধন হলে পরে ভালো বাড়ি ও মোয়াল্লেম পেতে সমস্যা হবে। তাতে গত বছরের মতোই ফ্লাইট বিপর্যয়সহ বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেবে।
অন্যদিকে ভুয়া হজযাত্রীর নামে প্রাক-নিবন্ধন প্রসঙ্গে বেসরকারি এজেন্সি মালিকদের সংগঠন হাবের মহাসচিব শাহাদাত হোসাইন তসলিম জানান, এবার মাত্র চার শতাংশ রিপ্লেসমেন্ট করা যাবে। এর বেশি এ বছর মন্ত্রণালয় আর কোনোভাবেই রিপ্লেসমেন্টের সুযোগ দেবে না। ফলে যদি কেউ এভাবে করে থাকেন তিনি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *