আন্তর্জাতিক

নিষেধাজ্ঞার জবাবে চীনের মার্কিন পণ্যে নতুন শুল্কারোপের হুমকি

বিএনএন ৭১ ডটকম
আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: মেধাস্বত্ত চুরিতে উৎসাহ যোগানোর অভিযোগে চীনের ওপর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেওয়া বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞার পাল্টায় যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন পণ্যের ওপর নতুন করে তিনশ কোটি ডলার শুল্ক আরোপের চিন্তা করছে বেইজিং।

যেসব পণ্যের ওপর বাড়তি শুল্ক আরোপের চিন্তা চলছে তার মধ্যে শূকরের মাংস, ওয়াইন, ফলমূল, স্টেইনলেস স্টিল পাইপের মত নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ও হার্ডওয়ার পণ্যসামগ্রী আছে। যুক্তরাষ্ট্র দুই দেশের বাণিজ্য সম্পর্ককে ‘বিপজ্জনক স্থানে’ নিয়ে যাচ্ছে অভিযোগ করে এ ধরনের পদক্ষেপ এড়াতে বেইজিং অনুরোধ জানিয়েছে বলেও খবর বিবিসির।

ওয়াশিংটন ‘বাণিজ্য যুদ্ধের কিনারা’ থেকে সরে আসবে বলেও আশাবাদ চীনের। বৃহস্পতিবার চীন থেকে আমদানি করা পণ্যে ৬ হাজার কোটি ডলার পর্যন্ত শুল্ক আরোপের প্রস্তুতি ও যুক্তরাষ্ট্রে চীনা বিনিয়োগে লাগাম টানার পরিকল্পনার কথা জানায় ট্রাম্প প্রশাসন।

বছরের পর বছর মেধাস্বত্ত চুরি ও এতে উৎসাহ যোগানোর কারণে বেইজিংয়ের ওপর এ ধরণের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে ভাষ্য ওয়াশিংটনের। ওই পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়ায় চীন মার্কিন পণ্যে নতুন শুল্ক আরোপের চিন্তার কথা জানায়।

শুক্রবার চীনের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, অর্থনৈতিক সহযোগিতাই ‘একমাত্র বিকল্প’। বাণিজ্যে দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতি হওয়ার আগে যেসব বিষয়ে বিরোধ আছে তা নিয়ে আলোচনা শুরুর উদ্যোগ নিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বানও জানিয়েছে তারা।

মার্কিন নিষেধাজ্ঞার পাল্টায় দুই স্তরের শুল্ক আরোপের পরিকল্পনার কথাও জানায় মন্ত্রণালয়।
যুক্তরাষ্ট্র চীনের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তিতে উপনীত না হতে পারলে তাজা ফলমূল, বাদাম, ওয়াইনসহ ১২০টি মার্কিন পণ্যে ১৫ শতাংশ হারে শুল্ক আরোপের হুমকি দিয়েছে তারা। এর ফলে মার্কিন ব্যবসায়ীদের অতিরিক্ত একশ কোটি ডলার গুনতে হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের আরোপ করা শুল্ক পর্যালোচনা শেষে দ্বিতীয় স্তরের পদক্ষেপ নেওয়া হবে; এ ক্ষেত্রে বন্দর ও অ্যালুমিনিয়াম স্ক্র্যাপের মত অন্তত ৮টি পণ্যে ২৫ শতাংশ শুল্ক বসবে, যা মার্কিনিদের খরচ বাড়াবে প্রায় দুইশ কোটি ডলার।

চীন বলছে, তারা ‘বাণিজ্য যুদ্ধ’ চায় না। তবে যুদ্ধ যদি শুরুই হয়, তাহলেও তাতে ভয় নেই তাদের।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *